Barisal Report .Com । বরিশাল রিপোর্ট .কম

ঢাকা, ২১শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং


প্রকাশ : মার্চ ২৮, ২০১৯ , ৫:৫৭ অপরাহ্ণ
উদ্ধার মুইদ আহমেদের বর্ণনায় বনানীর আগুন

অনলাইন ডেস্ক//রাজধানীর বনানীতে বহুতল ভবন এফ আর টাওয়ারে বড় ধরনের অগ্নিকাণ্ডে ভেতরে আটকা পড়া মানুষদের উদ্ধার করছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। এ পর্যন্ত ২০-২৫ জন মানুষকে উদ্ধার করা হয়েছে।

এদের মধ্যে রয়েছেন মুইদ আহমেদ কুমার নামে বেসরকারি একটি কোম্পানির কর্মকর্তা। ভবনটির ১১ তলা থেকে তাকে উদ্ধার করেন ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা।

‘ইউআর সার্ভিসেস বাংলাদেশ’ নামে একটি ফরওয়ার্ডিং কোম্পানিতে কর্মরত আছেন উদ্ধার হওয়া মুইদ।

উদ্ধার হওয়ার পর ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে মুইদ বলেন, দুপুরের দিকে আমাদের ভবনে আগুন লাগার খবর শুনি। এর কয়েক মিনিটের মধ্যেই আমাদের অফিসে আমরা লক হয়ে যাই। আমাদের ফ্লোরে এখনও আগুন লাগেনি। শুধু ধোঁয়া আর তাপ। তাপেই আমাদের এমডি স্যারের পুরো হাত পুড়ে গেছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা ৫৫ মিনিটের দিকে ভবনটির ৯ তলা থেকে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়। পরে এ আগুন ছড়িয়ে পড়ে পুরো ভবনে।

ফায়ার সার্ভিসের ১৭টি ইউনিট কাজ করে যাচ্ছে। সেই সঙ্গে বিল্ডিংয়ের ওপর থেকে হেলিকপ্টার থেকে বালু ফেলে আগুন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

এছাড়াও ল্যাডার ইউনিট (বহুতল ভবন থেকে উদ্ধারকারী সিঁড়ি) ও মোটরসাইকেল ইউনিটও উদ্ধারকাজে অংশগ্রহণ করেছে।

কাচে ঘেরা পুরো ভবনটির বাইরে থেকে কাচ ভেঙে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ভেতরকার ধোঁয়া বের করছেন এবং ল্যাডার দিয়ে আটকেপড়া মানুষদের উদ্ধার করে নিচে নামিয়ে আনছেন।

ভবনের নিচে রাখা হয়েছে বেশ কয়েকটি অ্যাম্বুলেন্স। আহতের দ্রুত চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে সেখানে। আহতদের অনেককেই কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

বিকাল ৫টা ৩৩ মিনিটে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত আগুন নিয়ন্ত্রেণে আসেনি। এ অগ্নিকাণ্ডে এখন পর্যন্ত ৫ জন নিহত ও বেশ কয়েকজন হতাহতের কথা জানা গেছে।

সূত্র জানায়, ভবনটিতে দ্যা ওয়েভ গ্রুপ, হেরিটেজ এয়ার এক্সপ্রেস, আমরা টেকনোলজিস লিমিটেড ছাড়াও অর্ধশতাধিক অফিস রয়েছে।

এদিকে ভবনে ভেতর আটকেপড়াদের উদ্ধারে ঘটনাস্থলে কাজ করছে ৫টি হেলিকপ্টার। বড় রশি ছেড়ে তাদের উদ্ধারের চেষ্টা করা হচ্ছে। উদ্ধারকৃতদের কুর্মিটোলা ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে।

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত
[tabs]