Barisal Report .Com । বরিশাল রিপোর্ট .কম

ঢাকা, ২১শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং


প্রকাশ : মার্চ ২২, ২০১৯ , ১০:৪৪ অপরাহ্ণ
বাবুগঞ্জে শেষ মূহুর্তে জটিল হচ্ছে ভোটের সমিকরণ

ভাইস চেয়ারম্যান পদে শিল্পি,শহীদ,
জামালের ত্রিমূখী লড়াইয়ের সম্ভাবনা
বাবুগঞ্জ প্রতিনিধিঃ আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বাবুগঞ্জ উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে এবার লড়াই হবে ত্রিমুখী । নির্বাচনের সময় যত ঘনিয়ে আসছে ততই জটিল হচ্ছে সমিকরণ। পদটিতে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন ৫ জন প্রার্থী । আওয়ামীলীগ থেকে ভাইস চেয়ারম্যান পদটি উন্মুক্ত করায় এবার মোট প্রার্থীর ৪ জনই আ’লীগের! অপরজন ওয়ার্কার্স পার্টির ।

আওয়ামীলীগের প্রার্থীরা হলেন উপজেলা আলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইঞ্জিঃ শাহরিয়ার আহমেদ শিল্পি , শ্রম বিষয়ক সম্পাদক জাঙ্গীর আকন, রহমতপুর ইউনিয়ন সম্পাদক মাস্টার মোঃ শহিদুল ইসলাম মল্লিক, ও ইকবাল আহমেদ আজাদ। ওয়ার্কার্স পার্টির মনোনিত প্রর্থী হলেন মোঃ জামাল হোসেন।

উপজেলার প্রত্যান্ত অঞ্চল ঘুরে ভোটারদের সাথে আলাপের মাধ্যমে যে বিষয়টি উঠে এসেছে তা হল এবার এই পদটিতে ত্রিমুখী লড়াইয়ের সম্ভাবনা দেখছেন তারা। আর লড়াইয়ে ইঞ্জিঃ শাহরিয়ার আহমেদ শিল্পি, মাস্টার মোঃ শহিদুল ইসলাম মল্লিক, মোঃ জামাল হোসেন রয়েছেন এগিয়ে। ইঞ্জিনিয়ার শাহরিয়ার আহমেদ শিল্পি উপজেলা আ’লীগ এর সাংগঠনিক সম্পাদক এবং এর বাইরে তার আরেকটি পরিচয়- তিনি সাবেক সচিব ইতিহাসবিদ সিরাজউদ্দিন আহমেদ এর ছেলে ।

পাশাপাশি একজন লেখক এবং অনলাইন এক্টিভিটিস। পারিবারিক ঐতিহ্যে ই তিনি রাজনৈতিক মাঠে পরিচিত মূখ । তাই উপজেলা আ’লীগের ভোট ব্যাংক এর একটি বড় অংশ তার পক্ষে জমা পড়ার সমম্ভাবনা রয়েছে ।

লেখক এবং অনলাইন এক্টিভিটিস হওয়ায় তরুন প্রজন্মের কাছেও তিনি বেশ জনপ্রীয় মূখ হওয়ায় নতুন ভোটারদের অনেক ভোট ই পেতে পারেন তিনি। অপরদিকে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আলীগের প্রর্থী না থাকায় মহাজোটের জা’পার হয়ে কাজ করায় বর্তমান এমপি গোলাম কিবরিয়া টিপু সহ উপজেলা জাতীয় পার্টির সবার কাছেই তিনি গ্রহনযোগ্য, যার ফলে জাতীয় পার্টির বড় একটি ভোট ও রয়েছে তার প্রাপ্তির ঝুলিতে।

শহিদুল ইসলাম মল্লিক রহমতপুর ইউনিয়ন আ’লীগ এর সাধারন সম্পাদক এর বাইরেও রয়েছে তার তার বেশ কয়েকটি পরিচিতি তিনি একাধারে একজন ডিপ্লোমা কৃষিবিদ , শিক্ষক, এবং শ্রমিক নেতা । সদা হাস্যজ্জল এই তরুন দলিয় বিভিন্ন অনুষ্ঠানে মিছিল মিটিং এ সক্রিয় অংশগ্রহন, বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে অংশ্রগ্রহন এর মাধ্যমে উপজেলা জুড়ে একটি পরিচিতি লাভ করেছেন। তার ভোট ব্যাংক হিসেব করলে দেখা যায় দলের হিসেবে আলীগের একটি অংশের ভোট পাবেন তিনি এর বাইরে তার প্লাস পয়েন্ট হিসেবে যোগ হবে নির্বাচনে তার শিক্ষক সমাজের ভুমিকা , শ্রমিকদের ভুমিকা এবং ভোট। সর্বপরি একজন শিক্ষক এবং স্বচ্ছ রাজনৈক ক্যারিয়ারের কারনে সাধারন ভোটাররা অনেকটাই শহিদুল ইসলামের পক্ষে রায় দেবেন বলে ধারনা করছেন বিশ্লেষকরা।

মোঃ জামাল হোসেন , ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতির সাথে জড়িত । বর্তমানে তিনি জেলা যুবমৈত্রীর সাধারন সম্পাদক ও রাশেদখান মেনন এর খুবই আস্থাভাজন একজন ব্যাক্তি । দলীয় মনোনয়োনের প্রার্থী হলেও নিজ দলের বাইরে তার রয়েছে একটি পরিচিতি । উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহন না করায় স্থানীয় সম্পর্ক এবং ক্লিন ইমেজের কারনে একটি নিরব ভোট রয়েছে তার । বিএনপির অনেক নেতাকর্মির সাথে ই রয়েছে তার সু সম্পর্ক যার ফলে এখানকার রাজনৈতিক বিশ্লেকরা মনে করেন দলের বাইরে ও বড় একটি নিরব ভোট পেতে পারেন জামাল। যা তাকে ভোটের মাঠে লড়াইয়ে অনেকটাই এগিয়ে রাখবে।

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত
[tabs]