শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:১৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
বরিশালে সড়ক দুর্ঘটনায় ঝড়ে গেলো  তিন শিক্ষার্থীর প্রাণ আইপিডিজি ডিস্ট্রিক গভর্নরকে  ফুলেল শুভেচ্ছা জানান রোটারি ক্লাব অব বরিশালের সভাপতি পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় অবৈধ ভাবে মাটি কাটার দায়ে ৩ লাখ টাকা জরিমানা। কলাপাড়ায় সার সরবরাহে সঙ্কট,দিশেহারা কৃষকসহ ডিলাররা। মহান শিক্ষা দিবস উপলক্ষে বরিশালে ছাত্র সমাবেশ বরিশালে কলেজছাত্র হত্যা মামলায় ২ আসামিকে ফাঁসি, ৪ জনের যাবজ্জীবন র্কীতনখোলা নদীর তীরের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ পায়রা সেতু দক্ষিনাঞ্চলে মানুষের জন্য আরেকটি পদ্মা সেতুর মতো-ওবায়দুল কাদের বরিশালে শেবাচিমে ডিজিও বিভাগ চালু মেহেন্দীগঞ্জে ছেলের হাতে আটক বৃদ্ধা মাকে উদ্ধারে ব্যর্থ জনপ্রতিনিধি
মহিপুরে শিবাড়িয়া নদীর অংশ দখল করে চলছে লাখ টাকার ভাড়া আদায়।

মহিপুরে শিবাড়িয়া নদীর অংশ দখল করে চলছে লাখ টাকার ভাড়া আদায়।

কুয়াকাটা প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর মহিপুরে নদী দখল করে চলছে বালুর ব্যবসা ও ভাড়া আদায়। নদীতীর থেকে প্রায় ৫০ ফুট অভ্যন্তরে মাটির বাঁধ দিয়ে বালু ভরাট করে দীর্ঘদীন ধরে অব্যাহত রয়েছে এমন দখল কার্যক্রম। এসব দেখেও সংশ্লিষ্ট অফিসের এক কর্তা বলছেন বিশ ফুট বাদে নদীর মধ্যে রয়েছে দখলদারদের বন্দবস্ত ।

আর স্থানীয়রা বলছেন নদীর মধ্যে দখলের এমন দৃশ্য আগে কখনোই দেখেননি তারা। উপজেলার মহিপুর থানার লতাচাপলী ইউপির পূর্ব আলীপুর ট্রলার মেরামতের পোতাশ্রয় (ডগ) সংলগ্ন শিববাড়িয়া নদী দখল করে তোলা হয়েছে বালু ব্যবসার ঘাট।

দখলকৃত নদী ইতোমধ্যে এক পরিবহন ব্যবসায়ীর কাছে ১ লাখ টাকার বিনিময়ে ভাড়া দিয়েছেন স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তি বেল্লাল কোম্পানী । তার দাবী ভূমি বন্দবস্ত পাওয়া মালিক পক্ষের কাছ থেকে ক্রয়সূত্রে নদীর ওই অংশের মালিক এখন তিনি।

স্থানীয় জেলেদের অভিযোগ প্রভাবশালী বেল্লাল কোম্পানির ডগের পাশেই এই নদী দখল করে ভাড়া দিয়েছেন তিনি। এতে নদীর পানির স্বাভাবিক প্রবাহে বাঁধাগ্রস্থসহ মাছ ধরা ট্রলারসমূহ যাতায়াতে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়েছে।

বর্তমানে নদীর ওই অংশ দিয়ে ২ থেকে তিনটি ট্রলারই চলাচল করতে পারছে না। এবিষয়ে নদীর অংশ ভাড়া নেয়া হিমি পরিবহনের মালিক জাকির হোসেনথর কাছে জানতে চাইলে তিনি মদ্যপ অবস্থায় সংবাদকর্মীদের সামনে হাজির হয়ে জানান, ‘আই ডোন্ট কেয়ারথ।

এ জমি আমি বেল্লাল কোম্পানীর কাছ থেকে এক লাখ টাকায় ভাড়া নিছি। আমারে কি ফাঁসি দেবে। এদিকে বন্দবস্ত পাওয়া মালিক থেকে ক্রয়সূত্রে নদী অংশের দাবীদার বেল্লাল কোম্পানীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আপনারা এইখানে আইছেন ক্যা। আপনাদের কি কাগজ আছে। ফাজিল সাংবাদিকের গুষ্টি।

অপরদিকে মহিপুর ইউনিয়ন ভূমি অফিস সহকারী কর্মকর্তা আজিজুর রহমান দখলের সত্যতা স্বীকার করে জানান, ওরা বন্দবস্ত পেয়েছে। তবে নদীর মধ্যে অন্তত বিশ ফুট দখল করেছে। কিভাবে নদীর মধ্যে বন্দবস্ত পেয়েছে তা আমি জানি না।

কলাপাড়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) জগৎবন্ধু মন্ডল জানান, ওইখানে আমাদের মহিপুর ভূমি অফিসের তহশিলদারসহ লোকজন গিয়েছিলো। দখলদারদের এক দিনের মধ্যে নদীর অংশ ছেড়ে দিতে বলা হয়েছে। তবে স্থানীয়রা জানান, দুই দিনেও দখল অবমুক্ত করা হয়নি।

Please Share This Post in Your Social Media




পুরাতন খবর

DEVELOP BY SJ WEB HOST BD
Design By Rana